দশমিনায় করোনা রোগী সনাক্ত,বাড়ী লকডাউন লাল পতাকা উত্তোলন

0
331

দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি : পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের নেহালগঞ্জ গ্রামে আবদুল লতিফ (৭২) নামে একজন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার বিকালে তার বাড়িতে গিয়ে লকডাউনসহ লাল পতাকা উত্তোলন করে দেয়। বর্তমানে আবদুল লতিফ শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ বরিশালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। করোনা পরীক্ষায় তার পজেটিভ আসার খবর গ্রামের বাড়ীতে দেয়া হলে এই খবর উপজেলা প্রশাসন জানতে পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশ তাদের বাড়ী থেকে রোগীর সংস্পর্শে আসা বেশ কয়েকজনের নমুনা সংগ্রহ করে শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। বর্তমানে বাড়ীটি লকডাউনসহ লাল পতাকা উত্তোলন করে দেয়া হয়। যশোর বেনাপোলে দস্যুতা মামলার আসামী শামিম শিকদার @ বাপ্পী গ্রেফতার। পিবিআই, যশোর জেলার আভিযানিক দল যশোর ইউনিট ইনচার্জ জনাব এম, কে, এইচ, জাহাঙ্গীর হোসেন পিপিএম এর সঠিক তত্ত্বাবধান ও দিক নির্দেশনায় এসআই(নিঃ)/ দ্বৈপায়ন মন্ডল, পিবিআই, যশোর এর নেতৃত্বে গত ০২-০৬-২০২০ খ্রিঃ বিকাল ১৭.২৫ ঘটিকার সময় আসামী মোঃ শামিম শিকদার (২২), পিং-মোঃ আলামিন শিকদার @ কালু, সাং-জিউধারা, থানা-মোড়েলগঞ্জ, জেলা-বাগেরহাট, এ/পি-দারুল আমান মহল্লার গলি (আশরাফের বাড়ির ভাড়াটিয়া), থানা-সোনাডাঙ্গা, জেলা-খুলনাকে তার বর্তমান ঠিকানা হতে আটক করা হয়। উল্লেখ্য যে, গত ইং ২৬-০৭-২০১৯ তারিখ রাত ০২.৩০ টার সময় মোছাঃ রেক্সোনা বেগম (৪৫), স্বামী-মোঃ আমিরুল ইসলাম, সাং-ছোট আচড়া (মাঠপাড়া), থানা-বেনাপোল পোর্ট, জেলা-যশোর এর বসতবাড়িতে দস্যুতার ঘটনা সংঘটিত হয়। উক্ত ঘটনা সংক্রান্তে যশোর জেলার বেনাপোল পোর্ট থানার মামলা নং-৬৮, তারিখ-২৬-০৭-২০১৯ ইং, ধারা-৩৯৪ পেনাল কোড রুজু হয় এবং যশোর জেলা পুলিশ সুপার মহোদয় উক্ত মামলাটি পিবিআই কর্তৃক তদন্ত করার জন্য পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স বরাবরে আবেদন করেন। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স, ঢাকার নির্দেশক্রমে পিবিআই, ঢাকা স্মারক নং-পিবিআই/মামলা/২০১৯/৩১৩৩/সিআরও (পশ্চিম), তারিখ-২৭-১০-২০১৯ খ্রিঃ মূলে মামলার তদন্তভার এসআই(নিঃ)/ দ্বৈপায়ন মন্ডল, পিবিআই, যশোর এর উপর অর্পণ করেন। মামলার তদন্তভার গ্রহণ করে তদন্তকারী কর্মকর্তা কর্তৃক প্রকাশ্য ও গোপন তদন্ত এবং তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে গত ইং ০২-০৩-২০২০ তারিখ ১৭.২৫ ঘটিকার সময় আসামী মোঃ শামিম শিকদার (২২) কে তার বর্তমান ঠিকানা হতে গ্রেফতার করা হয় এবং তার নিজ হেফাজত হতে লুন্ঠিত হওয়া একটি মোবাইল উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামী মোঃ শামিম শিকদার উক্ত দস্যুতার ঘটনায় জড়িত বলে স্বীকার করে। দস্যুতার ঘটনায় সংশ্লিষ্ট অন্যান্য আসামীদের সনাক্ত, গ্রেফতার ও লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধারের নিমিত্তে গ্রেফতারকৃত আসামী শামিম শিকদারকে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ০৫ (পাঁচ) দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আসামী শামিম শিকদারকে ইং ০৩-০৬-২০২০ তারিখ বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার ও লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধারের চেষ্টা অব্যহত আছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here