কেশবপুরে করোনা মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্থরা এনজিও’র কিস্তি ও মহাজনদের হালখাতার হাত থেকে রেহাই পেতে চায়

0
346

উদয় শংকর সিংহ, কেশবপুর (যশোর) ব্যুরো ॥ কেশবপুরে করোনা মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্থরা এনজিও’র কিস্তি ও মহাজনদের হালখাতায় হাত থেকে রেহাই পেতে চায়। কেশবপুর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া ইকবাল জানান, করোনা ভাইরাস মহামারীতে কেশবপুর উপজেলাবাসী কম-বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা করোনা ভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে উপহার হিসাবে খাদ্যসামগ্রী প্রদান করেছেন। যা উপজেলা প্রশাসন, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়েছে। তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে সরকারীভাবে অর্থ প্রদান করা হয়েছে। উপজেলার সকল মসজিদে ধর্ম মন্ত্রানালয়ের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা করা হয়েছে। তাছাড়া মরকারী ভাবে বিভিন্ন সাহায্য-সহযোহিতা অব্যাহ রয়েছে। যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার ব্যক্তিগত উদ্যোগে উপজেলার ১৫ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছেন। পৌর মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন তাদের সাধ্যমত খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। বিভিন্ন এনজিও এবং ব্যক্তি উদ্যোগেও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। অপরদিকে ঘুর্নিঝড় আম্পানের কারণে অসংখ্য পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সবেমাত্র লকডাউন শিথিল করলেও করোনা মহামারী ও আম্পান ঘুর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থরা অর্থনৈতিক ভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। এরই মধ্যে কয়েকটি এনজিও তাদের কিস্তি আদায় শুরু করেছে এবং যারা দিতে পারছে না তাদের জোর তাগিদ দিচ্ছে। অবরদিকে বাজারের ব্যাবসায়ী ও মহাজনরা তাদের পাওনা আদায়ের জন্য হালখাতার কার্ড বিলি করা শুরু করেছে। যার ফলে করোনা মহামারী ও আম্পান ঘুর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এব্যাপারে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া ইকবাল করোনা মহামারী ও আম্পান ঘুর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থদের আর্থিক সক্ষমতা ফিরা না আসা পর্যন্ত এনজিও’র কিস্তি ও মহাজনদের হালখাতা বন্ধ রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here