নড়াইলে স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্ত করায় অসহায় পিতার সদর থানায় লিখিত অভিযোগ

0
287
নড়াইল জেলা প্রতিনিধিঃ নড়াইলে স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্ত করার ঘটনায় অসহায় ছাত্রীর পিতা বিচারের দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরে অবশেষে নড়াইল সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,একই ইউনিয়নের আব্দুল মাজেদ মোল্যার মেয়ের মোছাঃ শান্তা ইসলাম স্থানীয় বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে।  স্কুলে যাতায়াতের পথে তার উপর কুদৃষ্টি পড়ে পার্শ্ববর্তী গ্রামের আবুল কালাম মোল্যার ছেলে বখাটে জুবায়ের মোল্যার। জুবায়ের তাকে স্কুলে যাওয়া-আসার সময় প্রায়ই উত্যক্ত করে আসছিল।
উত্যক্তের শিকার হয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বিষয়টি তার পরিবারকে জানালে তার পিতা স্থানীয় ইউপি সদস্য ও অভিযুক্তের পরিবারের কাছে ঘটনাটির সুষ্ঠু বিচার দাবি জানান।
কিন্তু এতে অভিযুক্ত জুবায়ের মোল্যা আরও বেশি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। বখাটে জুবায়ের মেয়েটির পরিবারের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে বারবার কল দিয়ে বিরক্ত করতে থাকে,বিরক্ত করার এক পর্যায়ে মেয়েটি জুবায়েরের নাম্বারটি ব্লাক লিস্টে রেখে দেয়। বারবার মোবাইলে যোগাযোগ করে ব্যর্থ হওয়ায় মেয়েটিকে অপহরণের উদ্দেশ্যে রোববার (৫ জুলাই) বিকালে অভিযুক্ত জুবায়ের মোল্যা, নান্নু মোল্যার ছেলে রায়হান মোল্যা, একই গ্রামের হারুন মোল্যার ছেলে রাজু মোল্যা, জুলহাস ফকিরের ছেলে রাসেল ফকিরসহ আরো ৮-১০ জনকে সাথে নিয়ে মেয়েটির বাড়িতে গিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়।
হামলার এক পর্যায়ে ঘুমন্ত মেয়েটিকে জবরদস্তি  উঠিয়ে তার হাত ধরে টেনে-হিঁচড়ে ঘর থেকে বের করে নিয়ে আসে।
তাকে ঘর থেকে বের করে নেওয়ার সময় তার স্পর্শকাতর অঙ্গে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানি ঘটায়। মেয়েটিকে অপহরণ করার সময় তার আন্তচিৎকারে পাশ্ববর্তী মঞ্জুরা বেগম,আসমা বেগম,শিমুল,রুবেল মোল্যাসহ অনেকে দৌঁড়ে এসে অপহরণকারীদের হাত থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করতে গেলে তারা উদ্ধারকারীদেরকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় পরে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে দ্রুত পালিয়ে যায়। বখাটে জুবায়ের ও তার সঙ্গীদের দ্রুত গ্রেফতারপূর্বক আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে মেয়েটি ও তার পরিবারের সদস্যরা। এ বিষয়ে নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন জানান,অভিযোগ পেয়েছি,।তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here