বেনাপোল কাস্টমসে গত অর্থ বছরে রাজস্ব ঘাটতি ৩৩৯২ কোটি টাকা

0
192

বেনাপোল থেকে এনামুল হকঃ বেনাপোল কাস্টমস হাউসে গেল ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে ল্য মাত্রার চেয়ে রাজস্ব আয় ঘাটতি হয়েছে ৩ হাজার ৩৯২ কোটি ২২ লাখ টাকা। এ সময় ভারত থেকে আমদানি হয়েছে ১৯ লাখ ৭৭ হাজার ৭৪ হাজার মেট্রিক টন পণ্য। তবে অর্থবছরের শুরুতেই রাজস্ব আয়ে পিছিয়েছিল এ কাস্টমস হাউস। এরপর করোনাভাইরাসের প্রভাবে এ পথে ভারতের সাথে টানা আড়াই মাস আমদানি বন্ধ থাকায় রাজস্ব আহরণ নেমে আসে অর্ধেকে। শনিবার (১১ জুলাই) ল্য মাত্রার পরিসংখ্যানের বিষয়টি জানিয়েছেন কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা সরোয়ার হোসেন।
কাস্টমস সূত্রে জানা যায়, গেল ২০১৯-২০ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে আমদানি হওয়া পণ্যের উপর ৬ হাজার ২৮ কোটি ৩৪ লাখ টাকা রাজস্ব আয়ের ল্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেয় বেনাপোল কাস্টমস হাউজকে। এ সময় অর্থবছর শেষে (জুলাই থেকে জুন) ল্যমাত্রার বিপরীতে কাস্টমস কর্তৃপ রাজস্ব আদায় করে মাত্র ২ হাজার ৬৩৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। এখানে ল্যমাত্রার চেয়ে রাজস্ব ঘাটতি হয়েছে ৩ হাজার ৩৯২ কোটি ২২ লাখ টাকা।
এর আগেও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বেনাপোল কাস্টমস হাউসে ৫ হাজার ১৮৫ কোটি টাকা রাজস্ব ল্যমাত্রার বিপরীতে আদায় হয়েছিল ৪ হাজার ৪০ কোটি টাকা। এবছরও ঘাটতি ছিল ১ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা। এ অর্থবছরে ভারত থেকে আমদানি পণ্যের পরিমাণ ছিল ১৮ লাখ ৩৬ হাজার ৯৫৩ মেট্রিক টন।
এছাড়া ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রাজস্ব ঘাটতি ছিল ১৭৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এ সময় ল্যমাত্রা ছিল ৪ হাজার ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। আদায় হয়েছিল ৪ হাজার ১৬ কোটি ২৪ লাখ টাকা।
বাণিজ্যের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী বলছেন, বন্দর ও কাস্টমসের বিভিন্ন অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা, শুল্কফাঁকি ও পণ্য খালাসে হয়রানি রাজস্ব ঘাটতির মূল কারণ। রয়েছে বাণিজ্য তদারকিতে নিয়োজিত সংস্থাগুলোর মধ্যে পরস্পরের সমন্বয়ের অভাব। এতে ব্যবসায়ীরা এ পথে বাণিজ্যে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ায় সরকারের যেমন রাজস্ব আয়ে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। বৈধ সুবিধা নিশ্চিত হলে আবার গতি ফিরবে বাণিজ্যে।
আর কাস্টমস কর্তৃপরে দাবি, শুল্কফাঁকি রোধে কড়াকড়ি আরোপ করায় আমদানি কমে রাজস্ব ঘাটতি হয়েছে। তবে ব্যবসায়ীদের বৈধ সুবিধাগুলো বাড়াতে কর্তৃপ আন্তরিক হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন।
জানা যায়, দেশে ২৩টি স্থলবন্দরের মধ্যে চলমান ১৩ বন্দরের সবচেয়ে বড় আর বেশি রাজস্ব দাতা বেনাপোল বন্দরের কাস্টমস হাউস। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় এপথে ব্যবসায়ীদের বাণিজ্যে আগ্রহ বেশি। দেশে স্থলপথে যে পণ্য আমদানি হয় তার ৬০ শতাংশ হয় বেনাপোল বন্দর দিয়ে। প্রতিবছর এ বন্দর দিয়ে প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়ে থাকে। যা থেকে সরকারের প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হয়। বন্দরে আমদানি পণ্যের ধারণ মতা ৫০ হাজার মেট্রিক টন কিন্তু এখানে সার্বণিক পণ্য থাকে প্রায় দেড় লাখ মেট্রিক টন। বর্তমানে বন্দরে ২৮টি পণ্যগার, ৮টি ওপেন ইয়ার্ড, একটি ভারতীয় ট্রাক টার্মিনাল, একটি রফতানি ট্রাক টার্মিনাল ১টি ট্রান্সশিপমেন্ট ইয়ার্ড ও একটি ভারতীয় ট্রাক চ্যাচিজ টার্মিনালের মাধ্যমে বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে। তবে এসব উন্নয়ন প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম।
বেনাপোল বন্দরের ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘কাস্টমসে আমদানি পণ্য পরীণের নামে হয়রানি বেড়েছে। টাকা না দিলে নমুনা ঢাকায় ল্যাবরেটরিতে পাঠাতে চায়। পণ্য পরীণের ভালো ব্যবস্থা আর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপরে নজর থাকলে হয়রানি পোহাতে হতো না। ঝামেলা এড়াতে এ পথে আমদানি কমিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। এছাড়া অসৎ ব্যবসায়ীরা এ পথে মিথ্যা ঘোষণায় ভায়াগ্রার মতো মাদকের চালানও আমদানি করছেন।
ব্যবসায়ী আজিম উদ্দীন বলেন, ‘আমদানি পণ্য কাস্টমস কর্তৃক পরীা-নিরীার পর সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ ছাড়া আবার বিজিবি সদস্যরা তা আটক করেছে। সেখানে ২/৩ দিন পণ্য চালান আটকে থাকছে। আমদানি,রফতানি বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বিজিবি আর কাস্টমসের মধ্যে পরস্পরের সমন্বয় দরকার। এতেও লোকসানের কারণে বাণিজ্যে আগ্রহ হারাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।
বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, ‘যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়াতে এ বন্দর দিয়ে সবাই ব্যবসা করতে চাই। কিন্তু অবকাঠামোগত উন্নয়ন সমস্যায় সুষ্ঠু বাণিজ্য বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সপ্তাহে ৭ দিন বাণিজ্য সেবা চালু থাকলেও ব্যবসায়ীরা তার সুফল পাচ্ছে না। বাণিজ্য প্রসার করতে হলে বৈধ সুবিধা প্রদান ও অবকাঠামো উন্নয়নের বিকল্প নেই।
আমদানি রফতানি ব্যবসায়ী সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক বলেন, ‘বার বার বন্দরে রহস্যজনক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটছে। এতে পুঁজি হারিয়ে পথে বসেছেন অনেক ব্যবসায়ী। এখনো সাধারণ পণ্যগারে কেমিক্যাল পণ্য খালাস করা হয়। বহিরাগতরা অবাধে প্রবেশ করে বন্দরে।
ব্যবসায়ীদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল, বন্দরের নিরাপত্তায় সিসি ক্যামেরা স্থাপনের। কিন্তু আজ পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন হয়নি। এখন এ বন্দর দিয়ে ব্যবসায়ীরা আমদানি করতে ভয় পায়।
বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদার বলেন, ‘এরইমধ্যে বেনাপোল বন্দরে অনেক অবকাঠামো উন্নয়ন হয়েছে। এ ছাড়া আরও যে উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে এর মধ্যে বন্দরে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, জেলখানার মতো বন্দরের চারিদিকে প্রাচীর নির্মাণ ও নতুন জায়গা অধিগ্রহণ। এসব উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত হলে বেনাপোল বিশ্বের কাছে একটি আধুনিক বন্দর হিসেবে পরিচিতি পাবে, তখন আমদানি বৃদ্ধির পাশাপাশি দ্বিগুণ রাজস্ব বাড়বে।’
বেনাপোল কাস্টমস হাউজের যুগ্ম কমিশনার শহিদুল ইসলাম জানান, করোনা প্রভাবের কারণে গেল বছরে রাজস্ব বেশি ঘাটতি হয়েছে। তবে পণ্য চালান খালাসে পূর্বের চেয়ে কাস্টমসে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বেড়েছে। শুল্কফাঁকি বন্ধে কড়াকড়ি আরোপ করায় কিছু ব্যবসায়ী এ বন্দর দিয়ে আমদানি কমিয়েছেন। বিশেষ করে রাজস্ব বেশি আসে এমন পণ্য চালান কম আমদানি হওয়ায় রাজস্ব ঘাটতি হচ্ছে। শুল্কফাঁকির সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here