মনিরামপুর পল্লীতে নববধূ কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা

0
278

নজরুল ইসলাম (খেদাপাড়া প্রতিনিধি) ঃ মনিরামপুর উপজেলার খেদাপাড়া ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের মুনছুরুর রহমান (মেম্বর) এর মেয়ে,যশোর সরকারি মহিলা কলেজের ইংরেজি অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্রী সোনিয়া খাতুন সোমবার ভোর ৫টার দিকে পিতার বাড়িতে গলায় ওড়না পেচিয়ে আতœহত্যা করেছে। গত জুন মাসে যশোর সদর উপজেলার চাঁচড়া ইউনিয়নের ভাতুড়িয়া গ্রামের মোঃ মহিম উদ্দীনের ছেলে ভারতের পাঞ্জাবে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এ শেষ বর্ষে অধ্যায়নরত পিয়ালের হোসেনের সাথে তার বিবাহ হয়। একে অপরের সাথে পরিচয়ের সূত্রে ঘনিষ্ঠ হলেও সবশেষে উভয় পরিবারের সম্মতিতে তাদের বিবাহ হয়। দেড় মাসের মধ্যে সে দুই বার সে শ্বশুর বাড়িতে যায়। গত কয়েক দিন আগে তার স্বামী পিয়াল হোসেন তার শ্বশুর বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায় এবং আজ আনুষ্ঠানিক ভাবে পিয়ালের পরিবারের প থেকে সোনিয়াকে তার শ্বশুর বাড়ির নেওয়ার জন্য আসার কথা ছিল। বেশ কয়েক দিন থেকে অসুস্থতার জন্য সোনিয়ার মন খারাপ ছিল বলে জানিয়েছেন তার পিতা মুনছুরুর রহমান। তবে চাপা কোন কষ্ট থেকে অভিমান করে সে আতœহত্যার পথ বেছে নিয়েছে বলে ধারণা করছে পরিবার সহ অন্যান্যরা। খেদাপাড়া পুলিশ ফাড়ির এস আই গোলাম রসুল জানান,পরিবারে অনুরোধে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।বহু প্রতিভার অধিকারী মেধাবী সোনিয়ার অকাল মৃত্যুতে শোকাভিভূত এলাকার সর্বসাধারণ। বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন তার পিতা-মাতা। তার মৃত্যুতে উপস্থিত হয়ে সমবেদনা প্রকাশ করেছেন খেদাপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এস এম আব্দুল হক, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আলিম জিন্নাহ, মনিরামপুরের প্রাক্তন মেয়র শহীদ ইকবাল হোসেন, কাউন্সিলর মফিজুর রহমান, এবং ইউপি সদস্যবৃন্দ। বিকাশে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।তার পিতা মেয়ের জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here