দশমিনায় ৪টি পশুরহাটে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

0
163

নাসির আহমেদ,দশমিনা ( পটুয়াখালী) প্রতিনিধি : পটুয়াখালীর দশমিনায় দুপুর হতে না হতেই পশুরহাটে ক্রেতা বিক্রতারা উপস্থিত হয়ে শরীরের সাথে শরীর লাগিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতা গা-ঘেঁষে দাঁড়িয়ে কেউ দরদাম করছেন। কেউ পশু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। উপস্থিত শত শত ক্রেতা বিক্রেতাদের অধিকাংশের ছিল না মাস্ক। সামাজিক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই পশুরহাটে। উপজেলার প্রতিটি হাটে সরকারি নির্দেশনার তোয়াক্কা না করেই বাজার পরিচালনা করছেন ইজারাদাররা। সব পশুরহাটেই এমন দৃশ্য দেখা গেছে। স্থানীয়রা এতে প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ ভয়াবহ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে। জানা যায়, উপজেলার পশুর হাটগুলোতে সারা বছরই ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগম থাকে। কিন্তু আসন্ন কোরবানি ঈদ উপল্েয হাটগুলোতে বেড়েছে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ক্রেতা-বিক্রেতা। সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার নলখোলা, ঠাকুরের হাট, যৌতা, রনগোপালদী হাটে শত শত ক্রেতা বিক্রেতার সমাগম তাদের ঘিরে রয়েছেন আরও বহু সংখ্যক দালাল। তাদের বেশিরভাগ ব্যক্তির মুখে মাস্ক নেই। হাটে গরু বিক্রি করতে আসা গোপালদী গ্রামের খলিল বলেন,অনেক দিন বাড়িতে আছি,হাতে টাহা পয়সা নাই। আইজ হাঠে গরু বেচতে আইছি। কিন্তু হাটে এসে মনে হচ্ছে মানুষের কোন করোনার ভয় নাই। ঠেলাঠেলি কইরা কেনাবেচা চলছে। গরু কিনতে আসা মোঃ ফাতেহ আলী বলেন, সবকিছু স্বাভাবিক সময়ের মতোই চলছে। কেউ তো সামাজিক দূরত্ব মানছে না। এমন কি মুখে মাস্কও ব্যবহার করছে না। ব্যবসায়ীরাও ক্রেতাদের কিছু বলছে না। উপজেলার পশুরহাটের ইজারাদার মোঃ সান্টু সিকদার বলেন,হাটে নিয়মিত ব্যবসায়ীসহ ক্রেতা-বিক্রেতাদের আগেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে, মুখে মাস্ক পরতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তারপরও করোনা সম্পর্কে সচেতন হওয়ার কথা বললেও তারা গুরুত্ব দিচ্ছে না। হাটে স্বাস্থ্য বিধি উপেতি হচ্ছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে দশমিনা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ জসিম বলেন,থানা প্রশাসন হাট বাজার সহ সব েেত্রই স্বাস্থ্য বিধি মানার জন্য প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছেন। সামনের দিন গুলোতে আরও বেশী নজরদারি করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here