শিশু পাচার প্রতিরোধ ও সুরক্ষা বিষয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

0
166

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ শিশু পাচার প্রতিরোধ ও সুরক্ষা এবং জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা নিরসনে শিশু ও নারী বান্ধব সংবাদ পরিবেশনা বিষয়ে গনমাধ্যম কর্মীদের সাথে সাতক্ষীরা জেলা পর্যায়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সাতক্ষীরা সদর উপজেলা ডিজিটাল কর্নারে উক্ত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোজাম্মেল হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা পরিষদ সদস্য এড. শাহানাজ পারভীন মিলি। এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন, সাতক্ষীরা প্রেসকাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম কামরুজ্জামান, রুহুল কুদ্দুস, বিডি নিউজ’র শরীফুল্লাহ কায়সার সুমন, বাংলা ভিশন টিভি ও দৈনিক আমাদের নতুন সময়ের আসাদুজ্জামান, করতোয়ার সেলিম রেজা মুকুল, বণিক বার্তার গোলাম সরোয়ার প্রমুখ। মূল প্রবন্ধ পাঠ ও সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ইনসিডিন বাংলাদেশ সাতীরার প্রতিনিধি সাকিবুর রহমান বাবলা।
মানবপাচার ও বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরায় সামাজিক ব্রিগেড গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, ভৌগলিক কারণে সাতক্ষীরা সীমান্তবর্তী জেলা। এ জেলার সীমান্ত দিয়ে দারিদ্র্যের কারণে অনেক সময় মানব পাচারের মতো ঘটনা ঘটে। কাজের সন্ধানে অনেকেই সীনানা পেরিয়ে ওপারে প্রতিবেশি দেশে চলে যায়। সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর কড়া নজরদারী সত্ত্বেও চোরাই পথে দালালদের মাধ্যমে পাচার হয় অনেকেই। বিজিবির হাতে আটক হওয়ার পর তাদের সোপর্দ করা হয় সংশ্লিষ্ট থানায়। এক্ষেত্রে মামলা হলে কখনো কখনো তার বাদী হয় পুলিশ। তাছাড়া মামলার তদন্ত পুলিশের উপর ন্যস্ত হয়। এ ক্ষেত্রে আইনী জটিলতার সৃষ্টি হয়। আইনী জটিলতার দরজা ভেদ করে বিচারের কাঠগোড়ায় পৌছাতে আইন প্রয়োগ সংস্থা ও ভিকটিমকে হতে হয় সীমাহীন হয়রানীর শিকার। অপরদিকে বাল্যবিবাহ সামাজিক ব্যাধিতে রূপ নিয়েছে। এ ব্যাধি দূর করতে না পারলে আলোকিত সমাজ গঠন করা অসম্ভব। শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকদের নিয়ে উঠোন বৈঠক করার তাগিদ দেন বক্তারা।
বক্তারা আরও বলেন, বিজিবির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জেলায় স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ঘটনা ঘটেছে গত এক বছরে ১০৩ টি। এরমধ্যে মামলা হয়েছে ৫৬টি। মামলাগুলো আদালতে বিচারাধীন। অপর দিকে ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত ৭ মাসের তথ্য তুলে ধরে বক্তারা বলেন, ওই সাত মাসে সাতক্ষীরা ও যশোর সীমান্ত থেকে বিজিবি ২৩৬ জন পুরুষ, ৮৪ জন নারী, ২১ জন শিশু উদ্ধার করে। এসব উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয় ১০৩টি। এভাবে প্রতিবছর পাচারের শিকার হচ্ছে অসংখ্য নারী, পুরুষ ও শিশু। বক্তরা আরও বলেন, শিশু পাচার প্রতিরোধ করতে হলে সবার আগে বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here