কালীগঞ্জে লকডাউনে কেউ ফিরে চায়নি স্বর্ণকারিগরদের দিকে

0
122

মিশন আলী,স্টাফ রিপোটার কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) ॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার স্বর্ণ কারিগরদের মাঝে করোনা কালিন সময়ে হতাসার ছাঁয়া নেমে এসেছে। কঠোর এই লকডাউনের কারণে স্বর্ণ কারিগরদের কোনো কাজ না থাকার কারনে পরিবার পরিজন নিয়ে খুবই কষ্টে অনাহারে অর্ধাহারে কোনো করম বেঁচে আছেন তারা। লকডাউনের কারনে ঈদে ছেলে মেয়েদের জন্য নতুন পোশাক কেনাতো দুরের কথা সেমাই-চিনি কিনতে তারা হিমসিম খেয়েছেন। সেই করোনা ভাইরাসের প্রথম থেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে তারা খুবই কষ্টের মধ্যে দিন অতিবাহিত করছেন। স্বর্ণ কারিগরদের দীর্ঘদিন ধরে কোনো কাজ কর্ম না থাকার কারনে পরিবার নিয়ে পড়তে হয়েছে মহা বিপদে। তাদের কপালে জোটেনি কোনো সরকারি বা বেসরকারি সহযোগিতা। তিলতিল করে জমানো টাকা দিয়ে এতো দিন কোনো মতে চললেও এখন আর বাঁচার কোনো উপাই নেই বলে জানান অনেকেই। কালীগঞ্জ উপজেলাতে হাজারের ও বেশি স্বর্ণ কারিগররা আছেন। কিন্তু কেউ ফিরে তাকাচ্ছেন না তাদের দিকে। একাধিক স্বর্ণ কারিগররা জানালেন তাদের দুঃখের কথা। করোনা নামক অতিমারির গ্রাসে সমস্ত জনজীবন আজ বিপন্ন। সখের বসে এখন আর কেউ আসছেনা গহনা বানাতে। কর্ম হারিয়েছেন এ উপজেলার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে কর্ম রত হাজারও স্বর্ণ শ্রমিক। স্বর্ণ কারিগর কালীগঞ্জ পৌরসভার কলেজপাড়া গ্রামের সজিব বিশ^াস জানান, এখন আর আমাদের কোন অর্ডার-পাতি নেই তাই কাজও নেই। পরিবার এর খরচ চালানোর তাগিদে মাঝে মাঝে বাড়ী রং করা হেলপার হিসাবে কাজ করছি। তাও প্রতিদিন কাজ নেই, মাঝে মাঝে যতটুকু করতে পারছি তাই দিয়ে কোন মতে দিন পার করছি। কালীগঞ্জ উপজেলা জুয়েলারী মালিক সমিতির (বাজুস) সভাপতির ওসমান আলী জানান, করোনা কালিন সময়ে যার যার ঘরের কারিগর সেই সেই দেখা শুনা করছেন। আমরা সমিতির পক্ষ থেকে কারিগরদের জন্য কোনো সহযোগিতা করিনি বা সহযোগিতা করারও কোনো চিন্তা ভাবনা আমাদের নেই । এই বিষয়ে জানতে চাইলে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া জেরিন জানন, আমি নতুন যোগদান করেছি তবে কর্মহীন সকল শ্রমিককে সহযোগিতা করা হবে। আমি স্বর্ণ কারিগরদের জন্য সরকারি সহযোগিতার ব্যবস্থা করবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here