দেবহাটায় ঘরছাড়া একটি পরিবার, একাধিক অভিযোগেও মিলছে না সমাধান!

0
147

নিজস্ব প্রতিনিধি: দেবহাটার সখিপুর গ্রামের একটি পরিবারকে ঘর ছাড়া করেও থেমে নেই অভিযুক্তরা। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনিক ভাবে অভিযোগ, জিডি, মামলা করেও সমাধান মিলছে না ভূক্তভোগী পরিবারটির। বর্তমানে ঐ পরিবারটি বাড়ি ছেড়ে ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছেন।
উপজেলার উত্তর সখিপুর গ্রামের শেখ মওদাদুর রহমানের ছেলে মোমিনুর রহমান জানান, পিতার চাকুরীর সুবাদে আমার পরিবার দীর্ঘদিন খুলনার দৌলতপুরে বসবাস করতাম। কয়েকবছর আগে দেবহাটায় ফিরে নিজেদের জমিতে বসতবাড়ি নির্মান করে বসবাস শুরু করি। বাড়িতে এসে আমি কৃষি ভিত্তিক খামার গড়ে তুলি। কিন্তু আমরা বাড়ি না থাকাকালিন আমাদের জমিজমা ও সবকিছু উত্তর সখিপুর গ্রামের শেখ মোকছাদুর রহমান ও শেখ মাহাবুবার রহমান দেখভাল করত। আমি বাড়ি আসার পরে সেই সম্মত্তি নিজে দেখাশুনা শুরু করি। আর এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের উপর শক্রতা শুরু করেছে। এরপর অভিযুক্তদের সাথে গোলোযোগ শুরু হয়। এমনকি তারা আমাদের জমিতে লাগানো গাছ কেটে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। আমি প্রতিবাদ করলে তারা আমার উপর চড়াও হয়ে মারপিট করে এবং জীবননাশের হুমকি দেয়। এই মর্মে আমি দেবহাটা থানায় বিগত ইং ২৭/০৬/২০২০ তাহাদের নামে একটি অভিযোগ দায়ের করি। যার জিডি নং- ৮১০। আমাদের জমিজমার সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজেও তারা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। এরপর তারা গত ইং- ১২/০৯/২০২০ তারিখে আমাকে এবং আমার পিতাকে মারপিট করে গুরুত্বর জখম করে। যার কারণে আমরা ২১ দিন যাবৎ সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলাম। এরপরও অভিযুক্তরা আমাদেরকে পুনরায় মারপিট করিবে এবং ক্ষয়ক্ষতি করবে বলে হুমকি দিতে থাকে। গত ইং ১১/১১/২০২০ তারিখ আমার বাড়ির সামনের রাস্তায় আমাকে লাথি, চড়, কিল, ঘুষি ও লাঠি দ্বারা পিটিয়ে জখম করে। পরবর্তীতে আমি গত ২৪/১১/২০২০ তারিখে দেবহাটা সার্কেলের এএসপি’র নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। বিষয়টি নিয়ে সার্কেল সাহেব কয়েকটি দিন দিলেও কোন সমাধান আসেনি। তাদের অত্যাচারে আমি বাধ্য হয়ে চলতি বছরের মার্চ মাসে নলতায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করছি। এতেও থেমে নেই উত্তর সখিপুর গ্রামের শেখ মোছাদুর রহমানের ছেলে শেখ মতিয়ার রহমান, মতিয়ার রহমানের ছেলে আহছান শেখ ও মতিয়ার রহমানের স্ত্রী সাবানা খাতুন, মোখছাদুর রহমানের ছেলে, মফিজুর রহমান, তার ভাই মঈনুর রহমান। তারা এখন হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছেন যে, যেকোন উপায়ে আমাকে হত্যা করে আমাদের সম্পত্তি জোরপূর্বক ভোগদখল করে নিবে। আর তাই আমাদের বাড়িতে নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরা স্থাপন করি। কিন্তু ৪আগষ্ট রাত ১০ টার দিকে বাদীরা আমাদের বাড়িতে এসে ঐ ক্যামেরা খুলে নিয়ে যায়। যার ভিডিও সংরক্ষন করা আছে। পরের দিন বৃহষ্পতিবার (৫ আগষ্ট) দেবহাটা থানায় পুনরায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। বর্তমানে আমি তাদের অত্যাচার ও ভয়ে গ্রাম ছাড়া হয়ে বসবাস করছি। আমি পুলিশ সুপার, দেবহাটা থানার ওসি সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। একই সাথে তাদের শাস্তি ও যাতে করে নিজ বাড়িতে শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস করতে পারি সেজন্য সকলের সহযোগীতা কামনা করছি।
দেবহাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার জানান, কয়েকদিন আগে সিসি ক্যামেরা চুরির বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি সঠিক তদন্তের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here