কুষ্টিয়ায় নদী ভাঙনে ২৫ এলাকা ঝুকিতে

0
171

নিজস্ব প্রতিবেদক কুষ্টিয়া : মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে পদ্মা-গড়াইয়ের পানি বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্লাবিত হচ্ছে কুষ্টিয়ার নিম্নাঞ্চল। বৃদ্ধি পেয়েছে নদী ভাঙন। ভাঙনের ২৫ টি এলাকা শনাক্ত সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোড । বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, পদ্মার পানি বৃদ্ধির এই ধারা আগামী ২৩ আগস্ট পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে বলে পূর্বাভাসে নিশ্চিত করেছেন। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যমতে, অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত এসব স্পট হলো- দৌলতপুর উপজেলার চিলমারি, ফিলিপ নগর ও মরিচা। ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ ও রায়টা ঘাট। মিরপুর উপজেলার তালবাড়িয়া, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার শেখ রাসেল কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরা বাঁধ ও স্কুল মাদ্রাসা। কুমারখালী উপজেলার সুলতানপুর ,কোমরভোগ, শিলাইদহ, চাপড়া ও তেবাড়িয়া। খোকসা উপজেলার কালিবাড়ি ও ওসমানপুর আবাসন প্রকল্প। আপদকালীন পদপে হিসেবে বালুভর্তি জিও ব্যাগে ফেলানো হচ্ছে। এছাড়াও স্যাটেলাইট (সিজিআইএস) থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী নদী ভাঙনের অধিক ঝুকিপূর্ণ স্পট হিসেবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে চিহ্নিত হয়েছে হেলালপুর, উসমানপুর, আবেদের ঘাট, কুলদিয়া, ভুড়কা, পুরাতন কুষ্টিয়া, শিমুলিয়া, কমলকান্দি , গনেশপুর, তেবাড়িয়া, এনায়েতপুর, লালপুরসহ প্রায় ২৫টি স্পট। গড়াই নদীর ভাঙনে তিগ্রস্ত শেখ রাসেল কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরা বাঁধ ঠেকাতে কর্মরত পানি উন্নয়ন বোর্ড কুষ্টিয়ার উপ-সহকারী প্রকৌশল মুস্তাফিজুর রহমান বলেন এখানে যে পরিমান ঝুঁকির সৃষ্টি হয়েছে সেটাকে গুরুত্ব সহকারে নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড বালুভর্তি জিওব্যাগ ফেলছে। কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আফছার উদ্দিন জানিয়েছেন, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলীর দপ্তর থেকে নির্বাহী প্রকৌশলী কুষ্টিয়ার দপ্তরে পাঠানো সতর্কবার্তায় জেলার নদী ভাঙন প্রবন ২৫টি স্পট শনাক্ত করে সেখানে জরুরি সতর্ক দৃষ্টি রাখার নির্দেশনাসহ প্রয়োজনীয় আপদকালীন পরিস্থিতি মোকাবেলার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড কুষ্টিয়ার তত্তাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আব্দুল হামিদ বলেন, পদ্মা ও গড়াইয়ের সবকটি ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বিশেষ নজর রেখে পর্যবেণ করা হচ্ছে। যেখানেই সমস্যা সৃষ্টি হবে, গুরুত্ব বিবেচনায় সেখানেই প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে। তবে এ েেত্র জরুরি কাজের পরিধি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় সামগ্রীর মজুত ইতোমধ্যেই শেষ হয়ে গেছে। আমরা বিভিন্ন সোর্সকে কাজে লাগিয়ে চাহিদা মেটানোর চেষ্টা করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here