আশাশুনিতে ৪ সপ্তাহের জামিনে বের হয়ে হত্যা মামলার আসামী মামলা তুলে নিতে হুমকি প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0
134

সেলিম রেজা মুকুূল সাতক্ষীরা বু্যুরো প্র্রধান : সাতক্ষীরার আশাশুনিতে ৪ সপ্তাহের জামিনে বের হয়ে হত্যা মামলার আসামী বাদী ও বাদীর স্ত্রীকে মামলা তুলে নিতে খুন জখমসহ বিভিন্ন হুমকি ধামকির প্রতিবাদে হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আশাশুনির বৈকরঝুটি গ্রামের মৃত রাজবিহারীর ছেলে শংকর সরকার।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন আমি একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। আমি দুটি সন্তানের জনক। আমার একমাত্র পুত্র সন্তান চন্দ্র শেখরকে গত ১৮ অক্টোবর ২০২০ তারিখ রাতে তারই বন্ধু আব্দুল মজিদের পুত্র মুবাশিশর শ^াসরোধ করে হত্যা করে। এঘটনায় আমি ২০ অক্টোবর ২০২০ তারিখে একটি মামলা দায়ের করি। উক্ত মামলায় আটক হয়ে মামলার একমাত্র আসামী মুবাশিশরকে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ। আটকের পর ১৬৪ ধারায় মামলার একমাত্র আসামী মুবাশশির স্বীকারোক্তি মূলক জবান বন্দি প্রদান করে। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাকিবুল ইসলামের সম্মুখে জবান বন্দিতে মুবাশিশর কিভাবে আমার একমাত্র পুত্রকে শ^াসরোধ করে হত্যা করে তার বর্ণনা দিয়েছে। এছাড়া আশাশুনি থানা পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তা মুবাশিশের বিরুদ্ধে চার্জশীট দিয়েছেন। আটকের পর হত্যাকারী মুবাশিশর পুলিশের সামনে আমার পুত্রকে হত্যার পর কোথায় মোবাইল ফেলেছিল, সীম ফেলেছিল, লুঙ্গি ও জুতা তুলে দিয়েছিল। সে সময় ভিডিও করা আছে। তারপরও আসামী গত ৮ মার্চ‘২০ তারিখে আদালত থেকে ৪ সপ্তাহের জামিনে মুক্তি লাভ করে। এরপর বাড়িতে ফিরে আমাকে সহ আমার স্ত্রীকে মামলা তুলে নিতে খুন জখমসহ বিভিন্ন হুমকি দিচ্ছে। ৪ সপ্তাহের জামিন পেলেও প্রায় ১ বছর প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে ওই হত্যাকারী মুবাশিশর। এতেই ক্ষ্যান্ত নয় হত্যাকারী মুবাশিশর, প্রকাশ্যে হুমকি প্রদর্শন করে বলছেন,“মামলায় আমার কিছুই হবে না, মাত্র ৪ মাসের জমিনে আসলেও আর জেলে কেউ ঢোকাতে পারবেনা, সুতরাং মামলা তুলে নিলে তোকেও হত্যা করে আবার ২ মাস জেল খেটে বাড়ি আসবো। এছাড়া আমার স্ত্রীকেও রাস্তাঘাটে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ, লাঞ্চিতসহ বিভিন্ন হুমকি ধামকি প্রদর্শন করে যাচ্ছে। আমার স্ত্রী একমাত্র পুত্র সন্তানকে হারিয়ে পাগল প্রায় হয়ে গেছে। অথচ যে হত্যা করল সে হত্যার কথা স্বীকার করেও প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আবার মামলা তুলে নিয়ে হুমকিও দিচ্ছে। এতে আমার স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যরা হতাশা গ্রস্থ হয়ে পড়েছে। একদিনে সন্তান হারানোর বেদনা, অন্যদিকে আসামীর হুমকি-ধামকিতে আমরা অতিষ্ট।
তিনি আরো বলেন হত্যাকারী নিজেই স্বীকার করেছে কিভাবে হত্যা করেছে। তারপরও প্রকাশ্যে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াতে পারে এটি আমাদের বুঝে আসে না। সন্তান যে হারিয়েছে সেই জানে এর যন্ত্রনা কতটা। সেই যন্ত্রনা নিয়ে সন্তান হত্যার আসামীর দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে ঘুরে বেড়াচ্ছি। যাতে আর কেউ অন্যের কোল খালি করতে না পারে সে কারনে তিনি একজন পুত্র হারা পিতা হিসেবে ওই খুনিকে গ্রেফতারপূর্বক দ্রুত বিচার সম্পন্ন করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি ফাঁসির দাবিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here