আর্থিক প্রতারনায় বেসিক ব্যাংক কর্মকর্তার নামে যশোরে মামলা

0
107

মালিকুজ্জামান কাকা, যশোর : আর্থিক প্রতারনার দায়ে বেসিক ব্যাংক লি: একজন অফিসার (ক্যাশ) এর বিরুদ্ধে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোতয়ালী আমলী আদালত যশোরে মামলা দায়ের হয়েছে। মো: ফারুক হোসেন নামের এই ক্যাশ অফিসার বর্তমানে রাজধানি ঢাকার শান্তিনগর শাখায় কর্মরত রয়েছেন। তার আইডি নং ২১৯৬। তিনি বাগেরহাট জেলার চিতলমারী থানার রায়গ্রামের মো: শমছের আলীর পুত্র। বাদি যশোর শহরের ৩নং ওয়ার্ড ঘোপ নওয়াপাড়া রোডের মো: আইয়ুব আলীর পুত্র সোহেল রানা (৩৮)। মামলা নং- ১৫৩১/২১, তারিখ-১৫/০৯/২১। ধারা-৪০৬/৪২০ দ: বি:। বাদি তার অভিযোগ পত্রে বলেছেন, আসামি ফারুক হোসেন তার পূর্ব পরিচিত। তিনি আর্থিক সমস্যায় পতিত হলে, ১১/০২/২০১৮ তারিখে তিনি বাদির কাছ থেকে দেড় লাখ টাকা ধার গ্রহন করেন। পরবর্তী তিন মাসের মধ্যে এই টাকা ফেরত প্রদানের শর্ত ছিল। কিন্ত দীর্ঘ দিনেও তিনি টাকা ফেরত দেননি। সর্বশেষ গত ১০/০৯/২০২১ তারিখে যশোর শহরের পালবাড়ি মোড়স্থ বাশার স্টোরে হাজির হন। সেখানে একটি শালিষ হয়। সেখানে আসামি টাকা ফেরত দিতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। একই সময়ে তিনি বাদিকে বলেন যে পারলে তিনি যেন আসামির কিছু করে দেখান। বাদি অনন্যোপায় হয়ে আদালতে মামলা করেন। মামলার স্বাক্ষী তিনজন। এরা হলেন, ১. যশোর পালবাড়ি মোড়স্থ বাশার স্টোরের মালিক খোরশেদ আলম ঝন্টু (পিতা- মৃত বাবর আলী), ২. সদর উপজেলার রহেলাপুরের মো: আসাদের পুত্র আল-আমিন ও ৩. পালবাড়ি মোড়স্থ শুভ হেয়ার কাটিং এর মালিক গৌর দাস ( পিতা- গোলাম চন্দ্র দাস)। এরা শালিষে উপস্থিত ছিলেন। বাদি সোহেল রানা বলেন, তিনি অতিশয় দরিদ্র ব্যক্তি। একজন বিপদে পড়েছে তাকে উপকার করাটা ঈমানের অঙ্গ। এটা ভেবেই তিনি তার পরিচিত ব্যাংক কর্মকর্তা কে টাকাটা ধার দেন। কিন্ত আসামি অতিশয় ধুরন্ধর ঠগ জোচ্চোর। তিনি টাকা ফেরতের শর্ত ভঙ্গ করেছেন বিধায় এই মামলার প্রয়োজন হয়েছে। যশোর জজকোর্টের এ্যাডভোকেট সজীব কুমার সরকার বাদির পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here