সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার কয়লা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল ও গেজেট ঘোষণা স্থগিত এবং ৪টি কেন্দ্রে ভোট পুনঃ গণণার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

0
250

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ৩নং কয়লা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল ও গেজেট ঘোষণা স্থগিত এবং ৪টি কেন্দ্রে ভোট পুনঃ গণণার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকালে সাতক্ষীরা প্রেসকাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়নতনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবী জানান, কলারোয়া উপজেলার কয়লা গ্রামের মৃত দিসারাত মোড়লের ছেলে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী মাস্টার মোঃ আসাদুল ইসলাম।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমি ৩নং কয়লা ইউনিয়ন পরিষদে গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলাম এবং আমার প্রতিপক্ষ মোটরসাইকেল প্রতিকের প্রার্থী ছিলেন শেখ সোহেল রানা। কিন্তু উক্ত নির্বাচনে আমি দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে ভোটে অংশগ্রহণ করলে আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেন। তিনি উক্ত নির্বাচনে ১নং আলাইপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (২য় তলা), ২নং আলাইপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (নিচ তলা), ৪নং উপজেলা রিসোর্স সেন্টার শ্রীপতিপুর ও ৩নং হামিদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে প্রভাব ও ক্ষমতা বিস্তার করে প্রিজাইডিং ও সহকারী পোলিং অফিসারের মাধ্যমে নৌকা প্রতিকের পরাজিত করার জন্য সুক্ষ কারচুপি করেন। উক্ত ৪টি কেন্দ্রে ভোট চলাকালীন অবস্থায় প্রার্থী শেখ সোহেল রানার মোটরসাইকেল প্রতিকের ষড়যন্ত্রকারীরা নৌকার এজেন্টদের জোর করে বের করে দেন এবং ভয়ভীতি দেখান। এছাড়া ভোট গ্রহণ শেষে ফলাফল দিতে বিলম্ব হওয়ার কারণে রাত্র ৮টার সময় আমি খবর পেয়ে ৬নং কুমার নল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গেলে অজ্ঞাত পরিচয়ের সশস্ত্র লোকজন আমাকে এবং আমার স্ত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যান। এর আগে ভোট চলাকালীন সময় তার লোকজন কেন্দ্র দখল করে নৌকার এজেন্টদের বের করে দিয়ে তারা মোটর সাইকেল প্রতীকে সীল মারেন এবং ভোট গণনায় সময় কারচুপি করে নির্বাচনী ফলাফল পাল্টে দেন। এছাড়া ১নং আলাইপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (২য় তলা) কেন্দ্রে প্রথমে ভোট গণনা শেষে নৌকা প্রতীকের ৪৪১ ভোট গণনা হলেও পরবর্তীতে নৌকা প্রতীককে মাত্র ৫২ ভোট দেখানো হয় এবং আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মোটরসাইকেল প্রতিকে ৭৯২ ভোট দেখানো হয়। ভোট গণনা শেষে ৪টি কেন্দ্র থেকে প্রিজাইডিং অফিসাররা আমার এজেন্ট এবং আমাকে কোন প্রকার ভোট গণনার রেজাল্ট শীট দেখাননি।
তিনি আরো বলেন, আমি রাত আনুমানিক ১১টার দিকে অজ্ঞাত স্থান থেকে ছাড়া পেয়ে জানতে পারি আমার নৌকা প্রতীকের ২৪৬৭ ভোট এবং আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মটরসাইকের প্রতিককে ২৪৭৮ ভোট দেখানো হয়েছে। অর্থাৎ মাত্র ১১ ভোটে আমাকে পরাজয় দেখানো হয়। সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনি এ সময় উক্ত ৪টি কেন্দ্রে ভোট পুনঃ গণনাসহ ৯টি কেন্দ্রে সর্বমোট ১৪৫টি বাতিলকৃত ভোট তদন্ত পূর্বক পুনঃ নিরীক্ষণ না করা পর্যন্ত সরকারিভাবে ফলাফল ঘোষনা এবং গেজেট প্রকাশ স্থগিত রাখার জন্য নির্বাচন কমিশনসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here