সস্তা ও পরিত্যক্ত জিনিসে ব্যায়ামাগার তৈরি করছেন পলাশ

0
795

রানা আহম্মেদ অভি : হাতের কাছে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা পরিত্যক্ত বাঁশের খুঁটি, প্লাস্টিকের পাইপ, পানির বোতল আর ইট বালি মাটি সিমেন্ট; বিভিন্ন উপকরণ মিলত করে সাজিয়ে গ্রামে তৈরি হয়েছে আধুনিক ব্যায়ামাগারের সব যন্ত্রপাতি । যা দেখলে শিশু থেকে বৃদ্ধা সকলের চোখে নজর তো কাড়বেই । এভাবে ছোট্ট থেকে শুরু করে আজ ডাম্বেল, বারবেল, পুলআপ বার আর দঁড়িলাফ বানিয়েছেন । পরিত্যক্ত আর সস্তা জিনিস দিয়ে আধুনিক তৈরির এমন উদ্যোগ নিয়ে কাজ শুরু করেছেন তরুণ ফ্রিল্যান্সার এ পি পলাশ। সারা বিশ্বজুড়ে যখন মহামারীর ব্যাপক তাণ্ডব তখন মানুষ ঘরে থাকতে থাকতে শারীরিক ভাবে দুর্বল হয়ে যায় । এপি পলাশও তাদের মতো একজন । প্রত্যন্ত গ্রামে বসবাস করলেও তার প্রবল আগ্রহ শরীর চর্চার । গ্রামে জিমের সুযোগ তো নেই বরং গ্রামে স্ব চোখে জিম দেখেছে এমন মানুষ সংখ্যেয় অনেক কম । পলাশ গ্রামে কিছু ছেলেদের নিয়ে শরীর চর্চায় এক বৈঠক করেন । ছেলেরা বুঝতে পারে নিয়মিত ব্যায়াম দেহ ও মনের শান্তি আর সুস্থতা বয়ে আনবে । পলাশের সঙ্গে সেই চিন্তা থেকেই গ্রামের ছেলেরা বিকেলে বাহিরে ঘুরে সময় নষ্ট করার সময়কে কাজে লাগিয়ে সুস্থ থাকা ও শরীর চর্চার উদ্যোগ গ্রহণ করে । তারা বুঝতে পারের শরীর চর্চার কোন বিকল্প নেই। এভাবে পলাশের নেতৃত্বের শুরু হয় জিম তৈরির পরিকল্পনা। প্রথমে সবাই ভাবতে থাকেন আধুনিক ব্যায়ামাগারের যন্ত্রপাতি ব্যতীত ভালো ভাবে শরীর চর্চার সম্ভব না । কিন্তু গ্রামে আধুনিক যন্ত্রপাতি আনার অর্থ কে দেবে? এমন চিন্তা মাথায় নিয়ে এপি পলাশ গতানুগতিক ধারার বাইরে গ্রামের আগ্রহী তরুণ সমাজের চেষ্টায় সস্তা ও পরিত্যক্ত জিনিসে দিয়ে তৈরি করেন জিম। পলাশের গাঁয়ের এই জিমের প্রথম উপকরণ হলো হাতের কাছে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ইট-বালি, মাটি-সিমেন্ট, প্লাস্টিকের পাইপ, বোতল, গাছের ডাল, বাঁশ-খুঁটি । এসব দিয়ে গ্রামেই তৈরি হলো ডাম্বেল, বারবেল, পুলআপ বার, দঁড়িলাফ আর আধুনিক জিম বা ব্যায়ামাগারের সব যন্ত্রপাতি। টেকনোলজিকে তোয়াক্কা দিয়ে কোন রকম অর্থ বা পয়সা-কড়ি ছাড়াই তৈরি করলেন ভারী ব্যায়ামের এসব যন্ত্রপাতি। কাঞ্চন, পারভেজ, রাব্বি, সবুজসহ কয়েকজন টাকা-পয়সা ছাড়াই এসব সরঞ্জাম দিয়ে তারা শরীর চর্চা করছেন। তারা সবাই আগের তুলনায় অনেক স্বাস্থ্যবান এবং সুন্দর আছেন। ব্যতিক্রমী ব্যায়ামাগারের উদ্যোক্তা এপি পলাশ জানান,তিনি শরীর অনুযায়ী ব্যায়ামসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নিয়মিত পড়াশোনা করছেন । এছাড়া প্রশিণ নেয়ার পাশাপাশি নিয়মিত ইউটিউবে বিভিন্ন কনটেন্ট দেখে তরুণদের শরীরচর্চায় উৎসাহিত করছেন। তার এই উদ্যোগ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়লে দেশের তরুণ সমাজ একত্রিত হয়ে তাদের পাড়া বা মহল্লায় গড়ে উঠবে এমন অসংখ্য জিম।দেশে থেকে নির্মূল হবে মাদক সহ অন্যান্য খারাপ নেশা। এ পি আরও বলেন, তিনি ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার শ্রীপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে । বর্তমানে কেসি কলেজ ঝিনাইদহ মাস্টার্সের একজন ছাত্র । পেশা হিসেবে একজন সফল ফ্রিল্যান্সার ও ডিজিটাল মার্কেটার হওয়ার ইচ্ছা আর ব্যতিক্রম এই শরীর চর্চা সারা দেশে ছড়িয়ে দিয়ে কাজ করার প্রবল ইচ্ছে আছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here